পরিবেশের জন্য ভাবনা|১ নম্বরের সমস্ত সম্ভাব্য প্রশ্ন

১।বায়ুমন্ডলে কোন গ্যাসের পরিমান সবচেয়ে বেশি?
উত্তরঃ- নাইট্রোজেন(৭৯%)

২। বায়ুমন্ডলের স্তরগুলি কি কি?
উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ার, স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার, মেসোস্ফিয়ার, থার্মোস্ফিয়ার, এক্সোস্ফিয়ার ও ম্যাগনেটোস্ফিয়ার।

৩। ট্রপোস্ফিয়ারের উচ্চতা কত?
উত্তরঃ ভূ-পৃষ্ঠ থেকে শুরু করে ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার।

৪। প্রতি কিলোমিটার উচ্চতা বৃদ্ধিতে ট্রপোস্ফিয়ারের উষ্ণতা কত কমে?
উত্তরঃ ৬.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

৫। ক্ষুদ্ধমন্ডল কোন স্তরকে বলা হয়?
উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ারকে।

৬। বায়ুমন্ডলের কোন স্তরের ঘনত্ব সবচেয়ে বেশি?
  উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ার।

৭। ঝড়, বৃষ্টি,বজ্রপাত ইত্যাদি প্রাকৃতিক ঘটনাগুলি বায়ুমন্ডলের কোন স্তরে হয়?
উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ার।

৮। ট্রপোপজ কি?
উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ারের সবচেয়ে উপরের অংশে যেখানে তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকে এবং যার পর থেকে স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার শুরু হয়।

৯। স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারের উচ্চতা কত?
উত্তরঃ ট্রপোস্ফিয়ের উর্ধপ্রান্ত থেকে অর্থাৎ ১৫ কিলোমিটার উচ্চতা থেকে শুরু করে ৪০-৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত।

১০। শান্তমন্ডল কোন স্তরকে বলা হয়?
উত্তরঃ স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার।

১১। জেটপ্লেনগুলি কোন স্তরের মধ্য দিয়ে চলাচল করে?
উত্তরঃ স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার।

১২। ওজোন স্তর কোথায় অবস্থিত?
উত্তরঃ স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারের নিম্ন অংশে ।

১৩। ওজোনস্তরে কোন গ্যাসের পরিমাণ বেশি?
উত্তরঃ ওজোন গ্যাস ।

১৪। ওজোন স্তর সূর্যের কোন রশ্মিকে শোষন করে?
উত্তরঃ অতিবেগুনিরশ্মিকে ।

১৫। ওজোন স্তরের উষ্ণতা কত?
  উত্তরঃ প্রায় ৭৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস ।

১৬। স্ট্র্যাটোপজ কি?
  উত্তরঃ স্ট্রাটোস্ফিয়ারের উর্দ্ধ অংশ যেখানে উষ্ণতার পরিবর্তন হয় না।

১৭। মেসোস্ফিয়ারের উচ্চতা কত?
  উত্তরঃ ৪৫ থেকে ৮০ কিলোমিটার ।

১৮। বায়ুমন্ডলের শীতলতম স্থান কোনটি?
  উত্তরঃ মেসোপজ ( উষ্ণতা প্রায় -৯২ ডিগ্রী সেলসিয়াস) ।

১৯। বায়ুমন্ডলের কোন স্তরে বায়ুর উপাদানগুলি আয়নিত অবস্থায় থাকে?
  উত্তরঃ থার্মোস্ফিয়ার ।

২০। কোন স্তরকে আয়নোস্ফিয়ারও বলা হয়?
  উত্তরঃ থার্মোস্ফিয়ারকে ।

২১। থার্মোস্ফিয়ারের উষ্ণতা কত?
  উত্তরঃ প্রায় ১২০০ ডিগ্রী সেলসিয়াস ।

২২। রেডিয়ো তরঙ্গ কোন স্তর থেকে প্রতিফলিত হয়?
উত্তরঃ থার্মোস্ফিয়ার বা  আয়নোস্ফিয়ার ।

২২। মেরুজ্যোতি কোন স্তরে সৃষ্টি হয়?
  উত্তরঃ থার্মোস্ফিয়ার বা  আয়নোস্ফিয়ার ।

২৩। কৃত্রিম উপগ্রহ ও স্পেস স্টেশনগুলি কোন স্তরে থাকে?
  উত্তরঃ এক্সোস্ফিয়ার ।

২৪। ভ্যান অ্যালেন বিকিরিণ বলয় কোন স্তরে থাকে?
  উত্তরঃ ম্যাগনেটোস্ফিয়ার ।

২৫। ভ্যান অ্যালেন বিকিরণ বলয়ের কাজ কি?
  উত্তরঃ বিভিন্ন শক্তিশালী মহাজাগতিক রশ্মিগুলির হাত থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করে।

২৬। কোন পদ্ধতিতে সূর্য থেকে পৃথিবীতে তাপ আসে?
  উত্তরঃ বিকিরণ পদ্ধতি।

২৭। ভূপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা কমতে থাকে কেন?
  উত্তরঃ কারণ উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বায়ুমন্ডলের তাপ ধারক উপাদানগুলির ( যেমন- জলীয় বাষ্প, ধুলিকণা, কার্বন-ডাই-অক্সাইড ইত্যাদি) পরিমাণ কমতে থাকে।

২৮। কলকাতা ও দার্জিলিং এর মধ্যে কোন জায়গার উষ্ণতা কম?
  উত্তরঃ দার্জিলিং, কারণ কলকাতা অপেক্ষা দার্জিলিং বেশি উচ্চতাতে অবস্থিত।

২৯। কলকাতা ও দার্জিলিং এর মধ্যে কোন স্থানে বায়ুর চাপ কম?
  উত্তরঃ দার্জিলিং, উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বায়ুমন্ডলের চাপ কমতে থাকে। এই কারণে সমতলবাসীরা হটাৎ করে পার্বত্য এলাকাতে গেলে হাই অলটিটিউড সিকনেস হয়।

৩০। সমুদ্রবায়ু কোন দিক থেকে কোন দিকে প্রবাহিত হয়?
  উত্তরঃ সমুদ্র থেকে স্থলভাগের দিকে।

৩১। সমুদ্রবায়ু কখন প্রবাহিত হয়?
  উত্তরঃ দিনের বেলা।

৩২। স্থল বায়ু কোন দিক থেকে কোন দিকে প্রবাহিত হয়?
  উত্তরঃ স্থলভাগ থেকে সমুদ্রের দিকে।

৩৩। স্থলবায়ু কখন প্রবাহিত হয়?
  উত্তরঃ রাত্রিতে।

৩৪। নাইট্রোজেনের কোন যৌগ ওজনস্তরে ধংস করতে পারে?
  উত্তরঃ নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড।

৩৫। কার্বনঘটিত কোন যৌগগুলি ওজনস্তরে ধংস করতে পারে?
  উত্তরঃ CFC ।

৩৬। CFC এর পুরো অর্থ কি?
  উত্তরঃ ক্লোরো ফ্লুরো কার্বন ।

৩৭। CFC কোথায় ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ  কুলিং এজেন্ট হিসাবে রেফ্রিজারেটর ও শীততাপ নিয়ন্ত্রক যন্ত্রে ব্যবহার করা হয়।

৩৮। CFC এর কোন অংশ ওজোন স্তর ধংস করে?
  উত্তরঃ অতিবেগুনি রশ্মি CFC এর উপর পড়লে তা বিশ্লিষ্ট হয়ে সক্রিয় ক্লোরিন পরমাণু উৎপন্ন করে। এই সক্রিয় ক্লোরিন পরমাণুই ওজোন গ্যাসকে ভেঙ্গে অক্সিজেনে রূপান্তরিত করে।

৩৯। ওজোন স্তরের প্রধান কাজ কি?
  উত্তরঃ সূর্য থেকে আসা অতিবেগুনি রশ্মিকে শোষন করে জীবজগতকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে।

৪০। অতিবেগুনি রশ্মি জীবজগতের কি কি ক্ষতি করতে পারে?
  উত্তরঃ মানুষের চামড়ার ক্যানসার, চোখের রেটিনার ক্ষতি ও উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়াতে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। এছাড়াও ভূপৃষ্ঠের উষ্ণতা বৃদ্ধি করে গ্লোবাল ওয়ার্মিং ঘটাতে পারে।

৪১। মনট্রিল প্রটোকল কত সালে সাক্ষরিত হয়?
  উত্তরঃ ১৯৮৭ সালে, ওজোনস্তর ধংস নিয়ন্ত্রনের উদ্দেশ্যে।

৪২। কয়েকটি গ্রীনহাউস গ্যাসের নাম লেখ?
  উত্তরঃ কার্বন ডাই অক্সাইড, মিথেন, নাইট্রাস অক্সাইড, জলীয় বাষ্প ইত্যাদি।

৪৩।  প্রধান গ্রীনহাউস গ্যাস কোনটি?
  উত্তরঃ কার্বন ডাই অক্সাইড ।

৪৪। জৈব গ্রীন হাউস গ্যাস কোনটি ?
  উত্তরঃ মিথেন ।

৪৫। বিশ্ব উষ্ণায়ন কাকে বলে?
  উত্তরঃ সারা পৃথিবী জুড়ে  উষ্ণতার ক্রমবর্দ্ধমান অবস্থাকে বিশ্ব উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং বলা হয়।

৪৬। গ্লোবাল ওয়ার্মিং নিয়ন্ত্রনের একটি কার্যকর উপায় কি?
  উত্তরঃ প্রচুর পরিমাণে গাছ লাগানো।

৪৭। বর্তমানে পৃথিবীর গড় উষ্ণতা কত?
  উত্তরঃ ১৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস ।

৪৮। বিগত একশ বছরে পৃথিবীর গড় উষ্ণতা কত বেড়েছে ?
 উত্তরঃ ১ ডিগ্রী সেলসিয়াস ।

৪৯। বিগত দশ বছরে ( ২০১০ থেকে ২০২০ ) পৃথিবীর গড় উষ্ণতা কত বেড়েছে?
  উত্তরঃ  ০.১৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

৫০। S.I পদ্ধতিতে তাপন মূল্যের একক কি ?
  উত্তরঃ কিলো-ক্যালোরি/কেজি ।

৫১। একটি কঠিন জীবাশ্ম জ্বালানির নাম লেখো।
  উত্তরঃ কয়লা ।

৫২। একটি তরল জ্বালানির উদাহরণ দাও।
  উত্তরঃ পেট্রোল ।

৫৩। একটি গ্যাসীয় জীবাশ্ম জ্বালানির উদাহরণ দাও।
  উত্তরঃ মিথেন ।

৫৪। CNG এর পুরো অর্থ কি?
  উত্তরঃ কমপ্রেসড নেচারাল গ্যাস ।

৫৫। LPG এর পুরো অর্থ কি?
  উত্তরঃ লিকুইফায়েড পেট্রোলিয়াম গ্যাস ।

৫৬। CNG কোন কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ বিভিন্ন যানবাহনের জ্বালানি হিসাবে।

৫৭। LPG কোন কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ রান্নার কাজে ।

৫৮। CNG এর উপাদান কি কি ?
  উত্তরঃ মিথেন(৮০%) , ইথেন ও প্রোপেন ।

৫৯। কোন জীবাশ্ম জ্বালানির তাপনমূল্য সবচেয়ে বেশি?
  উত্তরঃ LPG ।

৬০। সৌরকোশ কী কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ সূর্যের আলো থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য।

৬১। সৌরকোশ কোন কোন উপাদান দিয়ে তৈরী?
  উত্তরঃ সিলিকন ও জার্মেনিয়াম।

৬২। ভারতের একটি সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের নাম লেখো।
  উত্তরঃ কুর্নুল সোলার পার্ক, অন্ধ্রপ্রদেশ।

৬৩। সোলার হিটার কি?
  উত্তরঃ যে যন্ত্রের সাহায্যে সৌরশক্তিকে তাপ শক্তিতে রূপান্তরিত করা হয় তাকে সোলার হিটার বলে।

৬৪। সোলার হিটারের একটি ব্যবহার লেখোঃ

  উত্তরঃ  জল গরম করতে সোলার হিটার ব্যবহার করা হয়।

৬৫। বায়ুকল কী কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ বায়ুর গতিশক্তিকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তরিত করতে ব্যবহার করা হয়।

৬৬। পশ্চিমবঙ্গের কোথায় বায়ুশক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুত উৎপাদন করা হয়?
  উত্তরঃ সাগরদ্বীপে।

৬৭। গোবর গ্যাস বা বায়োগ্যাসের উপাদান কী?
 উত্তরঃ মিথেন(৮০%) ও কার্বন-ডাই-অক্সাইড(২০%) ।

৬৮। গোবর গ্যাস কি কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ রান্নার কাজে জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার করা হয়।

৬৯।  গ্যাসোহোল কি?
  উত্তরঃ পেট্রোল বা গ্যাসোলিন ও ইথানলের মিশ্রণ হল গ্যাসোহোল।

৭০। গ্যাসোহোল কি কাজে ব্যবহার করা হয়?
  উত্তরঃ গাড়ির জ্বালানি হিসাবে।

৭১। মিথেন হাইড্রেট থেকে কোন গ্যাস পাওয়া যায়?
  উত্তরঃ মিথেন।

৭২। মিথেন হাইড্রেট এর সংকেত কি?
  উত্তরঃ 4CH4.23H2O ।

৭৩। মিথেন হাইড্রেট কোথায় পাওয়া যায়?
উত্তরঃ সমুদ্রের তলায়।

৭৪। এক লিটার মিথেন হাইড্রেট থেকে কত লিটার মিথেন পাওয়া যায়?
  উত্তরঃ ১ লিটার মিথেন হাইড্রেট থেকে প্রায় ১৭০ লিটার মিথেন পাওয়া যায়।

Download this as PDF:

Leave a Comment

error: Content is protected !!